Life on the ghats
Destinations, Photo Essay

Varanasi: A Photo Essay

Some of my favorite things in all of existence are comic books, films, photographs, and surrealistic art. The marriage of storytelling and visual cues that carry forward a narrative is something that catches my attention every single time. Therefore, when Debanjan came up with these incredible images from our trip to Varanasi I knew I had to make an attempt at reconstructing a pastiche narrative out of things that are visible and things that can be imagined.

Narrow lanes of Kashi

Serpentine lanes of Kashi

I relate the by lanes of Varanasi with the serpentine underground world of the Minotaur’s chambers, or something that came out of Pan’s Labyrinth. A secret world where life flows on its own will; where we are pawns and destiny plays us off against each other. Every time you walk along the narrow lanes and take in the heady atmosphere, you will be transported, out of time and place, into the magic of mythic Varanasi.

Continue reading

Advertisements
Standard
Worshipping Lord Shiva
Destinations

Field Notes: Kashi II

v.

আস্তে আস্তে বুঝতে পেরেছিলাম যে কাশী শহর টা ঠিক এক মাত্রিক নয়। দেখতে গেলে, কোনো শহরই একমাত্রিক নয়, কিন্তু কাশী তে বহুমাত্রিকতা টা ততই প্রকট হয় যত গঙ্গা এগিয়ে আসে, এবং চোখ কান নাক খোলা রাখলে সম্পূর্ণ পরিবর্তন টা চোখে পড়তে বাধ্য। আধুনিক কাশী, পুরাতন কাশী পেরিয়ে গিয়েও গঙ্গাবক্ষের কাছে এসে আমি পৌঁছে গেছিলাম কাশী প্রাচীনতার সান্নিধ্যে। এখানে সময় শান্ত, ইতিহাস চিরজাগ্রত এবং আমাদের জাগতিক জীবনের অস্তিত্ব নগণ্য। বিশালের সামনে নিজের ক্ষুদ্রতা চিনতে শেখা একইসাথে ভয়াবহ এবং সমীহ উদ্রেগকারী, আর হয়তো আমাদের সকলের জন্যেই তা বেশ প্রয়োজনীয়ও বটে।

কাশীর ঘাট গুলি দিয়ে, গঙ্গা কে পাশে রেখে এগিয়ে যাওয়ার জন্ন্যে সবচেয়ে ভালো সময় কিন্তু ভোরবেলা। যে কোনো ধর্ম কেন্দ্রীক শহরের আত্মিক বৈশিষ্ট্য গুলো ফুটে ওঠার মাহেন্দ্রক্ষণ শুরু হয় ভোর ৪ টে নাগাদ। যত ভক্তি-প্রবল জায়গা, তত সূর্য-নমস্কারী আর পাপ স্খলনকারীদের প্রাতরাশ-পূর্ব কর্ম যজ্ঞ হলো এই সময়ে সারা দিনের পুণ্য সঞ্চয় করা। যত আলো ফোটে, তত রং রস গন্ধের সমারোহে কাশী নিছক একটা স্থান হওয়া ছেড়ে দিয়ে আধ্যাত্মিকতা কে আপন করে নেয়।

Continue reading

Standard
Meer Ghat, Kashi
Destinations

Field Notes: Kashi

i.

শাস্ত্রে বিজ্ঞজনেরা লিখেছিলেন আশি তে আসিও না| “কাশী তে কাশিও না” লেখা টা এড়িয়ে যাওয়া টা যুক্তিসঙ্গত কিনা সেটা তর্কসাপেক্ষ| তবে আজকাল কাশী তে নামলে ধুলোর চোটে বিষম, কাশি, নাক চুলকানি এসব গুলো প্রসাদসম, না চাইলেও খেতে হয়|

ii.

কাশী পৌঁছে ছিলাম ঘন্টা বারোর ট্রেন যাত্রার পর| প্রথম দর্শনে স্টেশন ঘেঁষা কাশী কিন্তু বারানসি নয়| বরং আর্থ-নাগরিক দিক দিয়ে আর পাঁচটা তথাকথিত হিন্দি প্রধান শহরের সাথে নিজের অস্তিত্ব মিলিয়ে মিশে এক বেঞ্চে বসার চর্বিতচর্বণ প্রচেষ্টা| লালচে বাদামি রঙের ওপর এক ছাইদানি ছাই ঘষে দিলে যেরকম মনখারাপি রং হবে, প্রাথমিক ভাবে কাশী সেরকমই মলিন| আর তার মাঝেই চার দিক দিয়ে বেরিয়ে আসছে পোস্টারে পোস্টারে মোদী জির হাসি মুখ| একদিকে উড়ালপুল তৈরির ধুলো ধোঁয়া আর অন্যদিকে স্বচ্ছ ভারতের প্রচারের এই ব্যাঙ্গাত্মক সহাবস্থান| শুরুর শুরু টা হয়েছিল এভাবেই|

কিছুটা নিরাশা সাথে করে নিয়েই টোটো করেছিলাম, গোদৌলিয়া মোর যাবার জন্ন্যে| দ্রষ্টব্ব্য, গোদৌলিয়া অতি গুরুত্বপূর্ণ স্থান, দশাশ্বমেধ ঘাটের আগের শেষ বড় চৌরাস্তা| প্রাক্তনীদের কাশী শুরু হয় কিন্তু এই চৌরাস্তা থেকেই|জোট কেটেছিল অনেক টা পর যখন অনেক টা শহর কাটিয়ে গঙ্গার কাছে এসে পৌঁছেছিলাম| গরু (বিশাল শিংওলা, পূর্ব ভারত আর পশ্চিম ভারত এর তফাৎ সৃষ্টিকারী বিষয়ে, পুং-জননেন্দ্রিয়ের প্রতীকীবাদ টুকু নাহয় বাদ-ই দিলাম), গোবর, ফেলুদার সিনেমায় দেখা অলি-গলি পাকস্থলী, কচুরি-চাট-পানের দোকান, মন্দির গুলোর বাড়বাড়ন্ত আর ধর্মের আস্ফালন টা দেখে চিনতে পারলাম, ঠিক জায়গা তেই এসেছি|

Continue reading

Standard